Blog

মার্কেন্টাইল ব্যাংক শিক্ষা বৃত্তি ২০২০

মার্কেন্টাইল ব্যাংক শিক্ষা বৃত্তি ২০২০: প্রকাশিত হয়েছে । ২০১৯ সালের অষ্টম শ্রেণীর জুনিয়র স্কুল সার্টিফিকেট (জেএসসি) বা সমমান,

মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) বা সমমান ও উচ্চ মাধ্যমিক সার্টিফিকেট (এইচএসসি) বা সমমান পরীক্ষায় উত্তীর্ণ অসচ্ছল ও মেধাবী শিক্ষার্থীদের বৃত্তি প্রদান করবে মার্কেন্টাইল ব্যাংক লিমিটেড।

Mercantile Bank Scholarship মার্কেন্টাইল ব্যাংক ‘আবদুল জলিল শিক্ষাবৃত্তি-২০১৯’ কার্যক্রমের আওতায় এ শিক্ষাবৃত্তি প্রদান করা হবে।

যে কোন বেসরকারি উৎস থেকে শিক্ষাবৃত্তি প্রাপ্ত শিক্ষার্থীরা এ বৃত্তির জন্য আবেদন করতে পারবে না।

কোনো বৃত্তির তথ্য গোপন করা হলে আবেদনপত্রটি বাতিল বলে গণ্য করা হবে।

বিস্তারিত দেখুন ভিতরের পাতায়:

মার্কেন্টাইল ব্যাংক শিক্ষা বৃত্তি ২০২০

বেসরকারি চাকুরীর খবর পেতে এখানে ভিজিট করুন।

বিভিন্ন এনজিওর চাকুরীর খবর পেতে ভিজিট করুন।

শিক্ষাবৃত্তি বা বৃত্তি হল শিক্ষার্থীদের পড়ালেখার জন্য একধরনের আর্থিক পুরস্কার। বিভিন্ন মানদন্ডের ভিত্তিতে বৃত্তি প্রদান করা হয়। এসব মানদন্ডের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হল শিক্ষার্থীর মেধা, উল্লেখযোগ্য সাফল্য ইত্যাদি।

বৃত্তি বনাম অনুদান

বৃত্তি এবং অনুদান অনেক সময় একই অর্থে ব্যবহৃত হলেও এ দুটির মধ্যে পার্থক্য আছে। অনুদান এর ক্ষেত্রে আর্থিক অবস্থাই মূল বিবেচ্য।

প্রাথীর আবেদনের উপর ভিত্তি করে অনুদান দেয়া হয়। প্রাতিষ্ঠানিক কার্যক্রম চালিয়ে যাবার জন্য আর্থিক অনুদান প্রদান করা হয়। এরূপ ক্ষেত্রে আর্থিক অনুদান না পেলে প্রার্থীর পক্ষে কার্যক্রম চালিয়ে যাওয়া সম্ভব হয় না।

অপরদিকে, বৃত্তি দেওয়া হয় বিশেষ সাফল্যের উপর ভিত্তি করে, অধিকতর প্রচেষ্টায় অনুপ্রেরণা স্বরূপ।

শিক্ষাবৃত্তিকে প্রধানত নিম্নলিখিতভাগে বিভক্ত করা হয়ঃ

মেধা-ভিত্তিক: এই ধরনের বৃত্তি মূলত শিক্ষার্থীদের ক্রীড়া, শিক্ষা, শিল্প ইত্যাদি ক্ষেত্রে নৈপুন্যের ভিত্তিতে প্রদান করা হয়।

এছাড়া এই বৃত্তি শিক্ষার্থীর সহ-শিক্ষামূলক কার্যক্রমের উপরও নির্ভর করে।

উত্তর আমেরিকাতে প্রধানত এই ধরনের বৃত্তি শিক্ষার্থীদের স্যাট এবং এসিটি পরীক্ষার ফলাফলের ভিত্তিতে প্রদান করা হয়।

প্রয়োজন-ভিত্তিক: এধরনের বৃত্তি শিক্ষার্থীর আর্থিক অবস্থার ভিত্তিতে প্রদান করা হয়।

দরদ্র্য অথচ মেধাবী শিক্ষার্থীদের পড়ালেখা সম্পন্ন করার উদ্দেশ্যে এসব বৃত্তি দেয়া হয়। প্রকৃতপক্ষে ইহা অনুদান।

শিক্ষার্থী-ভিত্তিক: এসব বৃত্তি প্রদানের ক্ষেত্রে প্রাথমিকভাবে শিক্ষার্থীর জাতীয়তা, লিঙ্গ, ধর্ম, পারিবারিক অবস্থা এবং আরও বিভিন্ন বিষয় বিবেচনা করা হয়।

যেমন- কানাডাতে অধিবাসী বৃত্তি বলে যে বৃত্তি প্রচলিত রয়েছে তা এধরনের শিক্ষার্থী-ভিত্তিক বৃত্তি।

এ বৃত্তির আওতায় শিক্ষার্থী দেশে বা দেশের বাহিরে পড়ালেখা করতে পারে। এধরনের বৃত্তি মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে কম দেখা যায়।

কর্মজীবন-ভিত্তিক: কলেজ বা বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃক শিক্ষার্থীদের প্রদান করা হয়।

কোন একটি নির্দিষ্ট বিষয়ে কর্মজীবনের পরিকল্পনায় সাহায্যের জন্য এই বৃত্তি দেয়া হয়।

এসব প্রায়ই শিক্ষা বা সেবামূলক ক্ষেত্রের মত যেসব বিষয়ের চাহিদা খুব বেশি, সেসব বিষয়ের শিক্ষার্থীদের প্রদান করা হয়।

নার্সিং এর শিক্ষার্থীদের চাহিদা বর্তমানে অনেক বেশি বলে এ পেশায় প্রবেশের জন্য শিক্ষার্থীদের এধরনের বৃত্তি দেয়া হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *